Trust Bank - ট্রাস্ট ব্যাংক

    Trust Bank - ট্রাস্ট ব্যাংক সরকারি কর্মচারীদের জন্য গৃহ নির্মাণ ও ফ্ল্যাট ঋণ দিচ্ছে। প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ও আবেদন ফরম পুরণ করে ঋণ নিন সহজেই। Trust Bank - ট্রাস্ট ব্যাংক থেকে ঋণ নিতে কি কি করে হবে এই আটিকেলটি পড়লেই বুঝতে পারেবন।


    আবেদনের নির্দেশাবলীঃ


    ১। ট্রাস্ট ব্যাংকের ওয়েব সাইটে আবেদন করতে হবে এবং ট্র্যাকিং নম্বর সংগ্রহ করতে হবে।

    ২। আবেদন ফরম পুরণ করলে ট্র্যাকিং নম্বর দেওয়া হবে, তা ডাউনলোড করে প্রিন্টআউট করতে হবে।

    ৩। ট্র্যাকিং নম্বরসহ আবেদন পত্রটি যথাযথ কর্তৃপক্ষ দ্বারা স্বাক্ষর করাতে হবে, এবং আপনার বেতন ভাতার প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র সহ যে শাখার নামে আবেদন করেছেন সেখানে জমা  দিতে হবে।

    ৪। আবেদন পত্র যে শাখায় জমা দিবেন উক্ত ব্যাংকে একটি হিসাব থাকতে হবে, বেতন/ভাতা/পেনশন ও গৃহ ঋণ বিতরণ ও আদায় সংক্রান্ত সমুদয় কার্যক্রম উক্ত শাখায় পরিচালিত হবে।


    কারা আবেদন করতে পারবেঃ


    ১। সরকারের আওতাধীন মন্ত্রণালয়/বিভাগ/পরিদপ্তর/কার্যালয়সমূহে শুধুমাত্র স্থায়ী পদের বিপরীতে নিয়োগপ্রাপ্ত (বেসামরিক/সামরিক) কর্মকর্তা/কর্মচারী।

    ২) ঋণ জন্য সর্বোচ্চ বয়সসীমা ৫৮ বছর।

    ৩) আবেদনকারীর মাসিক বেতন-ভাতা Online/EFT পদ্ধতির হতে হবে।


    কারা আবেদন করতে পারবেন নাঃ


    ১) রাষ্ট্রায়ত্ত্ব ও স্বায়ত্ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান, রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন কোম্পানীতে নিযুক্ত কর্মচারীগণ এই ঋণ সুবিধার আওতাভুক্ত হবেন না।

    ২) চুক্তিভিত্তিক, খন্ডকালীন ও অস্থায়ীভিত্তিতে নিযুক্ত কোন কর্মচারী এই ঋণ পাওয়ার যোগ্য হবেন না।

    ৩) কোন সরকারি কর্মচারীর বিরুদ্ধে মামলা এবং দুর্নীতি মামলার ক্ষেত্রে চার্জশিট দাখিল হলে মামলার চূড়ান্ত নিস্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত  ঋন গ্রহণ করতে পারবে না।

    ঋণের জন্য আবেদন করতে চাইলে Apply Now ক্লিক করুন

    Apply Now


    ঋণ গ্রহণের জন্য যে সকল কাগজপত্র প্রয়োজন

    Trust Bank

    প্রাইভেট প্লটের ক্ষেত্রেঃ


    ১। জমির মূল মালিকানা দলিল

    ২। এস এ/ আর এস রেকর্ডিয় মালিক থেকে মালিকানা স্বত্বের প্রয়ােজনীয় ধারাবাহিক দলিল 

    ৩। সি এস, এস এ, আর এস, বি এস ও প্রযােজ্য ক্ষেত্রে সিটি জরিপ খতিয়ানের জাবেদা নকল 

    ৪। জেলা/ সাব রেজিস্ট্রী অফিস কর্তৃক ইস্যুকৃত ১২ (বার) বছরের নির্দায় সনদ (এন ই সি)


    আরও পড়ুন >> SureCash - শিওরক্যাশ এর সুযোগ সুবিধা


    সরকারি/ লীজ প্রাপ্ত প্লটের ক্ষেত্রেঃ 


    ১। প্লটের বরাদ্দ পত্রের ফটোকপি

    ২। দখল হস্তান্তর পত্রের ফটোকপি 

    ৩। মূল লীজ দলিল ও বায়া দলিলের ফটোকপি (প্রযােজ্য ক্ষেত্রে) 

    ৪। লীজ দাতা প্রতিষ্ঠান হতে বন্ধক অনুমতি পত্র


    অন্যান্য কাগজপত্রঃ 


    ১। নামজারি খতিয়ানের জাবেদা নকল, ডি সি আর, হাল সনের খাজনা রশিদ 

    ২। অনুমােদন পত্র সহ অনুমােদিত নকশার ফটোকপি 

    ৩। প্লটের সয়েল টেস্ট রিপাের্ট এর ফটোকপি 

    ৪। ইমারতের কাঠামাে নকশার ফটোকপি ও ভার বহন সনদ { ৬ (ছয়) তলা পর্যন্ত ভবনের ক্ষেত্রে কর্পোরেশনের নির্ধারিত ছক মােতাবেক কমপক্ষে ৫ বছরের এবং ৭ (সাত) ও তদুর্ধ তলা ভবনের ক্ষেত্রে ১০ বছরের নির্মাণ ও ডিজাইন অভিজ্ঞতা সম্পন্ন গ্রাজুয়েট সিভিল ইঞ্জিনিয়ার প্রকৌশল পরামর্শদাতা প্রতিষ্ঠান কর্তৃক প্রদত্ত ভার বহন সনদ, সনদ প্রদানকারী প্রকৌশলীকে অবশ্যই ইনস্টিটিউট অফ ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশ এর সদস্য হতে হবে। 

    ৫। ফ্ল্যাট বন্টনের রেজিস্ট্রিকৃত শরিকানা চুক্তিপত্র দলিল (গ্রুপ ঋণের ক্ষেত্রে) 

    ৬। আবেদনকারীর জাতীয় পরিচয় পত্রের সত্যায়িত কপি, বেতন সনদ পত্র, সত্যায়িত ছবি ও স্বাক্ষর 

    ৭। নকশা মােতাবেক বাড়ি নির্মাণ ও অন্য কোন ব্যাংক/ আর্থিক প্রতিষ্ঠানে ঋণ নাই মর্মে স্ট্যাম্প পেপারে ঘােষণা পত্র


    Post a Comment

    Please do not enter any spam link in the comment box.

    Previous Post Next Post