বিকাশে সেভিংস  একাউন্ট ।। Bkash Saving Account

    বিকাশের মাধ্যমে সঞ্চয় করুন ভবিষ্যত গড়ে তুলুন

    বিকাশের মাধ্যমে সঞ্চয় গড়ে ভবিষ্যত গড়ার সুযোগ করে দিয়েছে ব্রাক ব্যাংকের খুবই গুরুত্বপুর্ণ মোবাইল ব্যাংকিং এ্যাপস বিকাশ। বিকাশ আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেড (IDLC Finance Limited) এর সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়ে যৌথ ভাবে এই কার্যক্রম চালু করেছে। আপনার প্রয়োজনে বিকাশ অ্যাপ দিয়ে আইডিএলসিতে টাকা জমাতে পারবেন এবং নিরাপদে আপনি  ভবিষ্যত গড়তে পারেন।


    আপনার প্রয়োজন মতে নির্দিস্ট টাকা এবং মেয়াদে বিকাশ অ্যাপের সেভিংস সার্ভিস থেকে খুব সহজেই আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেড সাথে শুরু করতে পারবেন সেভিংস স্কিম।


    সেভিংস স্ক্রিমের সুবিধা সমূহঃ

    ১। সেভিংস একাউন্ট খোলার জন্য আপনাকে তেমন কোন ঝামেলা পোহাতে হবে না। শুধুমাত্র বিকাশ এ্যাপসের মাধ্যমে এনইডি কার্ড দিয়েই খোলা যাবে একাউন্ট।

    ২। টাকা জামা দেওয়ার জন্য আপনাকে কোন প্রতিষ্ঠানেও যেতে হবে না।

    ৩। টাকা জমা দেওয়ার সময় আপনাকে মনে রাখতে হবে না। বিকাশ আপনাকে মনে করিয়ে দিবে।

    ৪। বিকাশে টাকা থাকলে প্রতিমাসে স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপনার বিকাশ একাউন্ট থেকে টাকা জমা হয়ে যাবে।

    ৫। বিকাশ থেকে টাকা টাকার পর আপনি সেভিংস এ সকল তথ্য দেখতে পাবেন।

    ৬। প্রতিমাসে আপনি কত টাকা জমা এবং কত লাভ দেখতে পাবেন।

    ৭। মেয়াদ শেষে লাভসহ আসল টাকা পেয়ে যাবেন আপনার বিকাশ একাউন্টে।

    ৮। মেয়াদ শেষে লাভসহ সম্পূর্ণ টাকা ক্যাশ আউট করতে কোনো খরচও লাগবে না।

     

    স্ক্রিমের পরিমান ও মেয়াদকালঃ

    ১। বিকাশ এবং আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেড যৌথ পরিচালিত

    ২। জমার পরিমাণ: প্রতি মাসে ৫০০/-, ১০০০/-, ২০০০/- এবং ৩০০০/- টাকা পর্যন্ত।

    ৩। সেভিংস স্কিমের মেয়াদ: ২, ৩ এবং ৪ বছর।

    ৪। সঞ্চয় টাকা উপর ৭% হারে লভ্যাংশ পাওয়া যাবে।

    ৪। মেয়াদ শেষে লাভসহ সম্পূর্ণ টাকা ক্যাশ আউট সম্পুর্ণ ফি।

     

    সেভিংস বাতিল হবার কারণঃ

    ১। আপনি যে দিন সেভিংস একাউন্ট খুলবেন সেইদিনই প্রতি মাসে টাকা প্রদান করতে হবে। যদি উক্ত দিনে টাকা না থাকে তবে আপনাকে মেসেজ দিয়ে জানিয়ে দেওয়া হবে। উক্ত তারিখ হতে ৩দিনের মধ্যে বিকাশে টাকা না তুলেন তবে সংক্রিয় ভাবে আপনার সেভিংস বাতিল হয়ে যাবে।

     

    সেভিংস একাউন্ট খোলার নিয়মঃ

    ১। প্রথমে বিকাশ এ্যাপসে যান।

    ২। এ্যাপস হতে সেভিংস ট্যাপ করুন।

    ৩। শর্তমেনে -নতুন সেভিংস স্কিম খুলুন - ট্যাপ করুন।

    ৪। সেভিংস-এর সময়কাল ২, ৩ এবং ৪ বছর এবং জমার ধরন (মাসিক) নির্বাচন করুন।    

    ৫। টাকা পরিমান ৫০০/-, ১০০০/-, ২০০০/- এবং ৩০০০/- নির্বাচন করুন।

    ৬। নমিনি প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে এগিয়ে যান।

    ৭। আপনার TIN নম্বর দিন (যদি থাকে)।

    ৮। সেভিংস সামারি দেখে নিশ্চিত হয়ে নিন।

    ৯। নিয়ম শর্তাবলী ভালোভাবে পড়ে, বুঝে আপনার এগিয়ে যান।

    ১০। আপনার বিকাশ একাউন্টের পিন দিন।

    ১১। সবশেষে - স্ক্রিনের নিচের অংশ ট্যাপ করে ধরে রাখুন।


    সকল তথ্য সঠিক ভাবে প্রদান করা হলে বিকাশ আইডিএলসি থেকে কনফার্মেশন মেসেজ আসবে, ওকে আপনি সফলকাম হয়েছে, আপনি সফলভাবে ডিজিটাল পদ্ধতিতে খুলে ফেললেন আপনার সেভিংস স্কিম।

     

    টিকাঃ কিছু শর্ত আসে যেমন, যদি মেয়াদ পুর্ণ হয়ে যায় তবে সকল টাকা আপনি বিনা খরচে উঠাতে পারবেন লাভসহ। আর যদি মেয়াদ শেষের আগে টাকা তুলতে চান তবে তুলতে পারবেন, কোন অসুবিধা নেই তবে যে পরিমান লাভ পেয়েছেন এতদিন সেগুলো পাবেন না। এবং টাকা উঠাতে খরচ কেটে নিবে। এতো সব কিছুর পরও আমি বলতে পারি যদি টাকা সঞ্চয় করে তবে ক্ষতি হবে না। কারণ যে পরিমান মাসে মাসে সঞ্চয় করেছেন সে টাকা তো আপনার ভবিষ্যতে কাজে আসবে।

    বিকাশের মাধ্যমে সঞ্চয় করুন


    আমার নিজের একটি সেভিং একাউন্টের বর্তমান ব্যালেন্স সহ স্কীনশর্ট

    Post a Comment

    Please do not enter any spam link in the comment box.

    Previous Post Next Post